মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট, ২০১০

বাংলা পরিমাপ



সবটা ঠিক ঠিক পড়তে হলে সংগে দেওয়া লিংক থেকে ফন্ট ফ্রি ডাউনলোড ‎করে নিতে হবে৤ ইউনিকোড ফন্ট ডাউনলোড করার লিংক:‎



অবাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য
উন্নত বাংলা ফন্ট  ‘অহনলিপি-বাংলা১৪’
https://sites.google.com/site/ahanlipi/font-download/AhanLipi-Bangla14.zip





সঙ্গে দেওয়া ফাইল দেখে নিতে হবে৤

অহনলিপি-বাংলা১৪ ডিফল্ট টেক্সট ফন্ট সেটিং
(AhanLipi-Bangla14 Default text font setting)
Default text font setting ডিফল্ট টেক্সট ফন্ট সেটিং

এবং



অহনলিপি-বাংলা১৪ ডিফল্ট ইন্টারনেট সেটিং
(AhanLipi-Bangla14 Default Internet setting)

(Default font setting ডিফল্ট ফন্ট সেটিং)

on internet(Mozilla Firefox)
(top left) Tools  
              Options--contents
              Fonts and Colors
              Default font:=AhanLipi-Bangla14
                        Advanced...
                                    Fonts for: =Bengali
                                    Proportional = Sans Serif,   Size=20
                                    Serif=AhanLipi-Bangla14
                                    Sans Serif=AhanLipi-Bangla14
                                    Monospace=AhanLipi-Bangla14,  Size=20
                                    -- OK
            Languages
            Choose your preferred Language for displaying pages
            Choose
            Languages in order of preference
            Bengali[bn]
            -- OK
 -- OK

          এবারে ইন্টারনেট খুললে ‘অহনলিপি-বাংলা১৪’ ফন্টে সকলকিছু দেখা যাবে৤ নেটে এই ফন্টে সব কিছু লেখাও যাবে৤





যুক্তবর্ণ সরল গঠনের বুঝতে লিখতে পড়তে সহজ৤


‎বাংলা পরিমাপ ‎‎‎
মনোজকুমার দ. গিরিশ

‎ ইংরেজি মাপ হল ফুট গজ পাউন্ড মাইল, বাংলায় হাত বিঘত বিঘা ক্রোশ৤ ‎একটা সহজ কথা আমাদের স্বীকার করে নেওয়া দরকার, তা হল এই যে, আমাদের ‎মাপজোক, হিসেবনিকেশ, সময়-পরিমাপ ইত্যাদিতে কোনও ভালো মান বা ‎স্ট্যান্ডার্ড নেই৤ বারো ইঞ্চিতে এক ফুট, এটা একটা সুনির্দিষ্ট মাপ৤ কিন্তু এক ‎হাত ঠিক কতোটা দীর্ঘ? বেশি লম্বা লোকের হাত বেশ বড়, সে ক্ষেত্রে হাত ‎একরকম; খর্ব লোকের পক্ষে তা অন্যরকম, অনেকটা ছোট৤ একশ’ হাত পরিমাণ ‎দু-জনের ক্ষেত্রে তাই দুরকম হবে৤ আবার এক প্রহর সময় ব্যাপারটা খানিকটা ‎অনুমানভিত্তিক সময়, প্রায় তিন ঘন্টা-- আট প্রহরে একদিন, ২৪ ঘণ্টায় একদিন৤ ‎‎(এক্ষেত্রেও ইংরেজি সময়-পরিমাপের ঘড়ি না হলে ঠিক কতক্ষণ তা বোঝা ‎কঠিন)৤

ইংরেজি মতে নতুন দিনের সূচনা হয় রাত বারোটার ঠিক পরের (পিকো)সেকেন্ডে, আর বাংলা মতে দিনের শুরু হয় শেষ রাতে, যখন আকাশে তারা সব ‎ডুবে যায়৤ ফলে যাঁর দৃষ্টি ক্ষীণ তাঁর দিন অনেক আগে শুরু হয়, আর প্রখর ‎দৃষ্টিশক্তির অধিকারীদের দিন শুরু হয় অনেক দেরিতে! তাঁরা আকাশে অনেক ‎বেশি সময় ধরে তারার আলোকবিন্দু দেখতে পান যে৤ এঁদের দিন শুরু হতে ‎দেরি হয়ে যায়! আর যদি শক্তিশালী দূরবিন চোখে লাগানো হয় তবে তো বিপদ ‎আরও বাড়বে, তারারা আকাশে যে পিট পিট করতেই থাকবে, তখন নতুন দিন ‎শুরুর উপায় কী?‎

বাংলা বানানের ক্ষেত্রেও আমাদের এই একই ধরনের হাতড়ানো ব্যাপারটা ‎বেশ রয়েছে, তাই একই শব্দের বানান একাধিক হয়, নানারকম হয়-- বাঙ্গালা, ‎বাঙ্গলা, বাঙ্গ্‌লা, বাঙলা, বাঙ্‌লা, বাংলা৤ ভাষার নামের বানানেই এত “বৈচিত্র”! আর ‎আশ্চর্য যে এর সব কটা বানানই ঠিক৻

আমাদের ঐতিহ্য হল কৃষ্ণের অষ্টোত্তর ‎শতনাম(১০৮ নাম), সে ঐতিহ্য আমরা বানানেও রক্ষা করে চলেছি৤ "সবিশেষ" ‎শব্দটির ২৪ রকম বানান তো হতেই পারে(১০৮ রকমও হতে পারে)! এই অতি আধুনিক মহাকাশ ও ‎কম্পিউটারের  
ন্যানো (nano 10 to the power minus nine ( ‎ ‎) ‎billionth),
পিকো(pico 10 to the power minus twelve ( ‎ ‎ ) trillionth) ‎

সেকেণ্ডের গতির যুগে আমাদের হতে হবে খুব সুনির্দিষ্ট, স্পষ্ট, নির্দ্বিধ-- ‎দ্বিধাহীন৤

কম্পিউটার মাত্র এক সেকেন্ডে কোটি কোটি অঙ্ক কষে ফেলে৤ ‎কম্পিউটারের কাছে একটা হরফের যা গুরুত্ব, একটা অতি ছোট বিন্দুরও ঠিক সেই ‎একই গুরুত্ব, অর্থাৎ সব সময়েই সে খুব সুনির্দিষ্ট, স্পষ্ট, দ্বিধাহীন৤ আমাদেরও ‎সেই গুণটি অর্জন করতে হবে৤ বাংলা বানান যেমন সব সময়ে নির্দ্বিধ হতে হবে, সময় ‎এবং অন্যান্য পরিমাপেও আমাদের সম্পূর্ণ নিখুঁত হতে হবে৤ শৈথিল্য বা ‎লাগামছাড়া মনোভাব আমাদের গতি এবং অগ্রগতিকে ব্যাহত করছে প্রতি মুহূর্তে, প্রতি পিকো ( ‎ ‎ ) সেকেন্ডে৤ ‎







-- ০০ --



কোন মন্তব্য নেই: