সোমবার, ২৪ নভেম্বর, ২০০৮

বাংলা সংখ্যার গণনা-পদ্ধতি


বাংলা সংখ্যার গণনা-পদ্ধতি

==========================

সবটা ঠিক ঠিক পড়তে হলে সংগে দেওয়া লিংক থেকে ফন্ট ফ্রি ডাউনলোড করে নিতে হবে৤

বিনামূল্যে বাংলা ইউনিকোড ফন্ট সরাসরি ডাউনলোড করুন নিচের এই লিংকে ক্লিক করে৤



উন্নত বাংলা ফন্ট  ‘অহনলিপি-বাংলা১৪’

https://sites.google.com/site/ahanlipi/font-download/AhanLipi-Bangla14.zip





অহনলিপি-বাংলা১৪ ডিফল্ট ইন্টারনেট সেটিং
(AhanLipi-Bangla14 Default Internet setting)

(Default font setting ডিফল্ট ফন্ট সেটিং)

on internet(Mozilla Firefox)
(top left) Tools  
              Options > contents
              Fonts & Colors
              Default font:=AhanLipi-Bangla14
                        Advanced...
                                    Fonts for: =Bengali
                                    Proportional = Sans Serif,   Size=20
                                    Serif=AhanLipi-Bangla14
                                    Sans Serif=AhanLipi-Bangla14
                                    Monospace=AhanLipi-Bangla14,  Size=20
                                    -->OK
            Languages
            Choose your preferred Language for displaying pages
            Choose
            Languages in order of preference
            Bengali[bn]
            -->OK
  --> OK

          এবারে ইন্টারনেট খুললে ‘অহনলিপি-বাংলা১৪’ ফন্টে সকলকিছু দেখা যাবে৤ নেটে একই ফন্টে সব কিছু লেখাও যাবে৤




যুক্তবর্ণ সরল গঠনের
বুঝতে লিখতে পড়তে সহজ৤

==========================




বাংলা সংখ্যার গণনা-পদ্ধতি

বাংলা সংখ্যার গণনা-পদ্ধতি

বাংলা বানানে যে অনেক বিভ্রাট আছে সে কথা আমরা জানি৤ কারণ তা নিয়ে অনেক আলোচনা প্রায়ই হয়৤ বাংলা সংখ্যা নিয়েও যে বিভ্রান্তি আছে তা নিয়েও আমাদের সতর্ক হওয়া দরকার৤ যদি বলা হয় ঊনসত্তরটা আম৤ তা হলে প্রায়ই একটু ভেবে নিতে হয় ঊনসত্তরটা ঠিক কত? ৬-এ ৯, কিংবা ৭-এ ৯? কথাটাকে অতিশয়োক্তি বলে ভাবার কারণ নেইবাস্তবে এটা প্রায় সকলের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য৤ সবাইকেই একটুখানি ভেবে নিতে হয় ঊনসত্তরটা ঠিক কত? ৬-এ ৯, কিংবা ৭-এ ৯? যদি আমরা ইংরেজিতে বলি ‘সিক্সটি নাইন’, তবে কারও বোধ হয় বুঝতে অসুবিধে হবে না যে এটা সিক্স(6) আর নাইন(9) মিলে তৈরি হবে৤ বাংলার ক্ষেত্রে কিন্তু ব্যাপারটা ততোটা সহজ নয়৤ সিক্সটি নাইন(69) বিদেশি ভাষার শব্দ হলেও তা আমাদের কাছে অনেক বেশি সহজবোধ্য৤ কারণ তাতে লজিক আছে৤ এমনিভাবে আরও কিছু সংখ্যা আছে যেগুলির ক্ষেত্রে এমনি কিছুটা অসুবিধা দেখা দেয়৤ ব্যাপারটা খুব বেশি রকম বিভ্রান্তিজনক না হলেও অবশ্যই সময় হরণকারী৤ আমরা একটুখানি চেষ্টা করলেই বাংলা এই সংখ্যাসমূহকে ইংরেজি সংখ্যার মতোই সহজবোধ্য করে নিতে পারি৤
সংখ্যাগুলি হল __ ৩৯, ৪৯, ৫৯, ৬৯, ৭৯, ৮৯ প্রধানভাবে এই ছয়টি সংখ্যা৤ অর্থাৎ প্রতিটি দশকের শেষ সংখ্যাটি৤ এসব সংখ্যাকে ঊনদশক সংখ্যা বলা যেতে পারে৤ কীভাবে এসব সংখ্যাকে সহজবোধ্য করা যাবে সে আলোচনায় যাবার আগে, বাংলা সংখ্যা নিয়ে একটু আলোচনা করে নেওয়া যাক৤
বাংলা বা অন্য যেকোনও সংখ্যা শুরু হবে ১ দিয়ে নাকি ০(শূন্য) দিয়ে? কম্পিউটার কিবোর্ডে দেখা যাবে সংখ্যা সাজানো আছে ১২৩৪৫৬৭৮৯০, এটাকেই আমরা কি সঠিক সংখ্যা সারি বলে মেনে নেব? না মানব না, আসলে সংখ্যা গণনা শুরু হবে ০(শূন্য) দিয়ে, ১ দিয়ে নয়৤ কেন সেরকম হবে সেটা স্পষ্ট হবে নীচে দেখানো সংখ্যার সারি বা সংখ্যাস্তম্ভ থেকে--

১০
২০
৩০
৪০
৫০
৬০
৭০
৮০
৯০
১১
২১
৩১
৪১
৫১
৬১
৭১
৮১
৯১
১২
২২
৩২
৪২
৫২
৬২
৭২
৮২
৯২
১৩
২৩
৩৩
৪৩
৫৩
৬৩
৭৩
৮৩
৯৩
১৪
২৪
৩৪
৪৪
৫৪
৬৪
৭৪
৮৪
৯৪
১৫
২৫
৩৫
৪৫
৫৫
৬৫
৭৫
৮৫
৯৫
১৬
২৬
৩৬
৪৬
৫৬
৬৬
৭৬
৮৬
৯৬
১৭
২৭
৩৭
৪৭
৫৭
৬৭
৭৭
৮৭
৯৭
১৮
২৮
৩৮
৪৮
৫৮
৬৮
৭৮
৮৮
৯৮
১৯
২৯
৩৯
৪৯
৫৯
৬৯
৭৯
৮৯
৯৯
 
প্রথম খাড়াই সারিতে ০ থেকে ৯ অবধি হবার পরে, দ্বিতীয় খাড়াই সারিতে ১০ থেকে ১৯ অবধি হয়েছে৤ তৃতীয় খাড়াই সারিতে ২০ থেকে ২৯ অবধি হয়েছে৤ চতুর্থ খাড়াই সারিতে ৩০ থেকে ৩৯ অবধি হয়েছে৤ এভাবে প্রতিটি সারি শুরু হচ্ছে ১ ২ ৩ ৪ ইত্যাদির পরে ০(শূন্য) বসিয়ে, শেষ হচ্ছে সংখ্যা ৯ বসিয়ে৤ প্রতি দশকের শুরুতে সেই দশক-সংখ্যা (...৩,৪,৫,৬...) এবং তারপরে শূন্য(০) বসিয়ে সংখ্যাস্তম্ভ শুরু হয়৤ এটা ব্যতিক্রমহীনভাবে ঘটছে সকল সংখ্যার ক্ষেত্রেই৤ এটাই সংখ্যা গণনার শৃঙ্খলা৤ অর্থাৎ সংখ্যা গণনা শুর হবে ০(শূন্য) দিয়ে এবং শেষ হবে ৯ দিয়ে৤ আমরা অভ্যাস বশে ১ দিয়ে সংখ্যা গণনা শুরু করে শেষ করি ১০ বলে, কিন্তু তাতে সংখ্যা দশটিই হয় বটে, কিন্তু এ ক্ষেত্রে আমরা সংখ্যার সারিশৃংখলা ভাঙি৤ সংখ্যার সারি বা সংখ্যাস্তম্ভ দেখলে এটা সহজেই বোঝা যাবে৤
সংখ্যার সারি বা সংখ্যাস্তম্ভ শুরু হয় ০(শূন্য) দিয়ে, আর শেষ হয় ৯ দিয়ে৤ নইলে একক সংখ্যা ১ ২ ৩ ৪ ৫ ৬ ৭ ৮ ৯ গণনার পরে আমরা যে ১০ বলি সেটি দ্বিসংখ্যা-সারির সূচনা, (এরকম চলে ৯৯ অবধি) সেখানকার ০ সংখ্যাটি আমরা মূল এককসংখ্যা গণনার সময়ে না বলেই পরবর্তী ধাপে চলে যাচ্ছি৤ মূল যে সংখ্যা-একক সেগুলি বলার সময়ে আমরা ০(শূন্য)-কে বাদ দিয়ে পরবর্তী ধাপে চলে যাই, এটা ভুল পদ্ধতি৤ মনে রাখতে হবে যে, ১০ কোনও মূল একক-সংখ্যা নয়৤ আমাদের অভ্যাসকে ব্যাহত না করে বাহ্যিকভাবে কম্পিউটারে ১ দিয়ে সংখ্যা শুরু করা হলেও এর আভ্যন্তরীণ ব্যবস্থাপনা কিন্তু ০(শূন্য) দিয়ে শুরু হয়েছে, যা বাইরে থেকে বোঝা যায় না৤ বাংলা ইউনিকোড ওপেন টাইপ ইউ.আই. ফন্টে সংখ্যার কোড তথা সংখ্যাসূচক হেক্সাডেসিম্যালে(ষোড়কসংখ্যা) হল -- ০=$09E6, ১=$09E7, ২=$09E8, ৩=$09E9, ৪=$09EA, ৫=$09EB, ৬=$09EC, ৭=$09ED, ৮=$09EE, ৯=$09EF
আর সেটাই ডেসিম্যালে(দশকসংখ্যা) হল -- ০=2534, ১=2535, ২=2536, ৩=2537, ৪=2538, ৫=2539, ৬=2540, ৭=2541, ৮=2542, ৯=2543
মনে রাখতে হবে কিবোর্ডে কি(Key) তথা চাবিগুলি ইচ্ছে মতো সাজিয়ে নেওয়া যায়৤ সেটাই সংখ্যা-চাবির ক্ষেত্রে করা হয়েছে৤ হরফের চাবিও তো__ এ বি সি ডি, করে পর পর সাজানো নেই৤ যদিও তার কারণ ভিন্নতর-- এই আলোচনায় সে সব নিয়ে বলার সুযোগ নেই৤ তাই বাইরে থেকে মনে হয় সংখ্যা-এককের শেষ সংখ্যা বুঝি ০(শূন্য), আসলে তা যে শুরুর সংখ্যা কিবোর্ডের সজ্জা দেখে সে ব্যাপারে আমরা যেন বিভ্রান্ত না হই৤ আমাদের প্রচলিত অভ্যাসকে ব্যাহত না করে, সংখ্যাগুলিকে যে এ ভাবে অভ্যাস-মোতাবেক সাজানো হয়েছে তা বুঝতে যেন ভুল না করি৤
এবারে আলোচনা করা যাক যে, উল্লেখিত ছয়টি সংখ্যার গণনায় কী পরিবর্তন আনলে এগুলি গণনা সহজ হবে৤ ১৯ এবং ২৯ সংখ্যা দুটি হল সংখ্যা-শতকের প্রথমদিকের সংখ্যা, তাই এই সংখ্যা দুটিতে সম্ভবত কোনও বিভ্রাট ঘটে না৤ বিভ্রাট ঘটে বা ঘটতে পারে ৩৯ থেকে, তাই সেখান থেকেই নতুন প্রক্রিয়া শুরু করা যেতে পারে৤ যদিও ১৯ থেকেই প্রক্রিয়াটি দেখানো গেল:--
১৭ -- সতেরো
১৮-- আঠারো
১৯ -- নয়ারো /উনিশ
...
২৭ -- সাতাশ
২৮ -- আটাশ
২৯ -- নয়াশ/ঊনত্রিশ/নয় বিশ/নয় কুড়ি
____________________________________

...
৩৭ -- সাঁইত্রিশ/সাতত্রিশ
৩৮ -- আটত্রিশ
৩৯ -- নয়ত্রিশ
...
৪৭ -- সাতচল্লিশ
৪৮ -- আটচল্লিশ
৪৯ -- নয়চল্লিশ
...
৫৭ -- সাতান্ন
৫৮ -- আটান্ন
৫৯ -- নয়ান্ন/নয়পঞ্চাশ
...
৬৭ -- সাতষট্টি
৬৮ -- আটষট্টি
৬৯ -- নয়ষট্টি
...
৭৭ -- সাতাত্তর
৭৮ -- আটাত্তর
৭৯ -- নয়াত্তর/নয়সত্তর
...
৮৭ -- সাতাশি/সাতআশি
৮৮ -- আটাশি/অষ্টআশি
৮৯ -- নয়াশি/নয়আশি


এর পরে ৯৯ নিয়ে কোনও বিভ্রাট নেই৤
এইখানে একটা জিনিস উল্লেখ করা দরকার যে, বাংলা সংখ্যা ১ এবং ১১ কথায় লেখা হয় এক, এগার৤ কিন্তু সংখ্যা দুটি লেখা উচিত ১=এয্‍ক, ১১=এয্‍গারো৤ নয়তো লেখা দেখে অনেকে এয্‍ক না বলে বলেন এ-ক, আর এয্‍গারো না বলে বলেন, এ-গা-র৤ উচ্চারণে এ ভুল সংশোধিত হওয়া উচিত৤
গণনার সময়ে ৩৯, ৪৯, ৫৯, ৬৯, ৭৯, ৮৯ সংখ্যাগুলির প্রত্যেকটি হল এসবের পরবর্তী সংখ্যাস্তম্ভের আগাম ঘোষণা৤ ৩৯ হল চল্লিশের প্রাক ঘোষণা৤ তেমনি ৪৯ হল পঞ্চাশের প্রাক ঘোষণা৤ ৫৯ হল ষাটের প্রাক ঘোষণা৤ ৬৯ হল সত্তরের প্রাক ঘোষণা৤ ৭৯ হল আশির প্রাক ঘোষণা৤ তেমনি ৮৯ হল নব্বুইয়ের প্রাক ঘোষণা৤ কিন্তু ৯৯ কোনও সংখ্যার আগাম বা প্রাক ঘোষণা নয়৤
প্রাক ঘোষণায় পরবর্তী সংখ্যাস্তম্ভের আভাস পাওয়া যায় ঠিকই কিন্তু
তা-ই আবার সংখ্যা গণনায় বিভ্রান্তির বাহক৤ তাই যতটা পালটালে সবচেয়ে ভালো হয় তা দেখতে হবে৤
রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক পবিত্র সরকার তাঁর ’বাংলা বানান সংস্কার :সমস্যা ও সম্ভাবনা‘-১৯৮৭, প্রথম প্রকাশ, চিরায়ত প্রকাশন, কোলকাতা, গ্রন্থে ”এক থেকে একশো : একটি প্রস্তাব“ নিবন্ধে এ নিয়ে একটি মনোজ্ঞ আলোচনা করেছেন৤ সেখানে তিনি অনেকগুলি পরিবর্তন করার প্রস্তাব দিয়েছেন৤ খুব লজিক্যাল এ প্রস্তাবটি পাঠকেরা পড়ে দেখতে পরেন৤
বাংলা ভাষাকে গতিশীল করার ব্যাপারে সকলের বিষয়টি নিয়ে ভাবা দরকার৤ বাংলা বানান নিয়ে চিন্তাভাবনার সঙ্গে সঙ্গে বাংলা সংখ্যা নিয়েও ভাববার আশু প্রয়োজন আছে৤







দেখুন লিংক:  বাংলাময় ব্লগ


বাংলা সংখ্যা গণনা : http://banglamoy.blogspot.in/2015/03/blog-post_21.html  




কোন মন্তব্য নেই: